নতুন প্রকাশনা সমূহ:

নতুন গাড়ি ক্রেতাদের জন্য গাড়ির পরিচিতি সিরিজ-৫।(আজকের পর্ব টয়োটা ভিটজ)

১০ মার্চ, ২০১৬ চাকা বিডি মন্তব্য নাই টিপস এন্ড ট্রিক্স, হোম

ফিচারটি লিখেছেন মাহমুদ।

টয়োটা ভিটজ মূলত টয়োটা স্টারলেট এর বিকল্প হিসেবে বাজারে আসে। এটি একটি সাবকম্প্যাক্ট হ্যাচব্যাক। টয়োটা ১৯৯৮ সালে ভিটজ বাজারে আনে। এই গাড়িটি ভিটজ,ইয়ারিস এবং ইকো নামে ৭০টি দেশে ২০১০ সাল পর্যন্ত ৩.৫ মিলিয়ন বিক্রি হয়েছে। এর স্পোর্টসি ডিজাইন এবং শক্তিশালী পারফরম্যান্স তরুণদের মধ্যে ব্যপক জনপ্রিয়।  

 

এ পর্যন্ত ভিটজের তিনটি প্রজন্ম বাজারে এসেছে। এদের সবগুলোতেই রয়েছে ভিন্ন দু’রকম বডি টাইপ, তিন দরজা এবং পাঁচ দরজা বিন্যাস, কয়েক ধরনের ইঞ্জিন স্পেসিফিকেশন এবং ট্রান্সমিশন সিস্টেম।

প্রথম প্রজন্ম(এক্সপি১০;১৯৯৮-২০০৫)

ভিটজের প্রথম প্রজন্ম বাজারে আসে ১৯৯৮ সালে। এর দুটি ভার্শন ১০০০সিসি ও ১৫০০সিসি এর ইঞ্জিন স্পসিফিকেশন হচ্ছে যথাক্রমে 1SZ-FE14 এবং 1NZ-FE14। এটি ৭.৯ সেকেন্ডে ০-১০০ কিলোমিটার গতি উঠাতে সক্ষম। এতে ৪ স্পিড অটোমেটিক ও ৫ স্পিড ম্যানুয়াল – এ দু’ধরণের ট্রান্সমিশন দেয়া হয়। ২০০৩ সালে নতুন একটি ভার্শন আনা হয় যাতে পরিবর্তিত বাম্পার ও টিয়ারড্রপ ফ্রন্ট লাইটের সংযোজন ছাড়া আগের মডেলের বাকি সব বৈশিষ্ট্যই ছিলো।

দ্বিতীয় প্রজন্ম(এক্সপি৯০;২০০৫-২০১০)

২০০৫ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে ভিটজ এর দ্বিতীয় প্রজন্ম বাজারে আসে।  নতুন ভার্শনটির নকশা করা হয় আরো তারুন্য নির্ভর ভঙ্গিতে। এর ১০০০সিসি এর ইঞ্জিন স্পেসিফিকেশন পরিবর্তন হয়ে 1KR-FE13 হয় এবং ১৫০০সিসির ইঞ্জিন স্পেসিফিকেশন অপরিবর্তিত থাকে। এছাড়াও ১৬০০সিসি এবং ১৮০০সিসির ইঞ্জিন ছাড়া হয়, ট্রান্সমিশন সিস্টেমে ১.৪ লিটার ডিজেল  ইঞ্জিনের জন্য একটি অতিরিক্ত ৬ স্পিড ম্যানুয়াল সিস্টেম যোগ করা হয়। সবচেয়ে বড় পরিবর্তন ছিল ভিটজের নিরাপত্তা ব্যবস্থায়, যেটি ইউএস এনএইচটিএসএ ক্র্যাশ টেস্ট রেটিংসে ৪.০ পায়।

তৃতীয় প্রজন্ম(এক্সপি১৩০; ২০১০-চলছে)

২০১০ সালে এর তৃতীয় প্রজন্ম বাজারে আসে। যা এখন পর্যন্ত রয়েছ। এই সিরিজে সর্বাপেক্ষা বেশি পরিবর্তন সাধন হয়, কারণ এখানে পরিমার্জিত করা হয়েছে মডেলের পুরো পরিকল্পনাটিই।  মডেলগুলো পুনর্নকশা করা হয় আরো ক্রীড়াসুলভ চেহারায়, তাৎক্ষণিকভাবে যা ক্রেতাদের নজর কেড়ে নেয়। টয়োটা মডেলের ইঞ্জিন লাইনকে প্রসারিত এবং প্রবর্ধিত করে। জ্বালানি দক্ষতা অনেক বাড়ানো  হয়।

টয়োটা ভিটজের ফিচার সমুহঃ টয়োটা ভিটজ দুই রকম কাঠামোতে পাওয়া যায়। একটি তিন দরজা বিশিষ্ট হ্যাচব্যাক,এল এবং এলই ট্রিম যুক্ত। আরেকটি পাঁচ দরজা বিশিষ্ট হ্যাচব্যাক, এল, এলই এবং এসই ট্রিম যুক্ত।টয়োটা ভিটজ এর কমফোর্ট লেভেল বিবেচনা করে সাধারণত F,RS এবং JEWELA এই তিন গ্রেডের গাড়ি বাজারে পাওয়া যায়।

toyta vitz f

F গ্রেডঃ এটি ভিটজ এর বেসিক গাড়ি এবং কী স্টার্ট। এখানে এসি, রেডিও,ডিভিডি,ব্যাক ক্যামেরা,অপটিকাল মিটার,মাল্টিমিডিয়া সিস্টেম,পাওয়ার স্টিয়ারিং,পাওয়ার উইনডো ইত্যাদি।

vitzs rs

RS গ্রেডঃ এটি পুশ স্টার্ট এবং আগের সুবিধা ছাড়াও অন্যান্য যে সুবিধা দেখা যায় তা হচ্ছে সফট টাচ এসি,উইঙ্কার মিরর,ফুল এরো কীট,ফগ লাইট ইত্যাদি।

jewela

JEWELA গ্রেডঃ এটিও পুশ স্টার্ট এবং সর্বাধিক সুবিধা সম্বলিত। তবে এখানে অতিরিক্ত পাবেন অটো এসি,প্রজেকশন হেড লাইট,নিকেল ডোর হ্যান্ডেল, রেইন গার্ড, রিয়ার উইপার ইত্যাদি।

 

২০১৪ এর পরে এখানে যুক্ত করা হয়েছে নয়টি এসআরএস এয়ারব্যাগযুক্ত টয়োটার স্টার সেফটি সিস্টেম। ইলেকট্রনিক স্ট্যাবিলিটি কন্ট্রোল,ব্রেক এসিস্ট, ট্র্যাকশন কনট্রোল,ডে টাইম রানিং লাইট,ডে টাইম রানিং লাইট,অ্যান্টি-লক ব্রেকিং সিস্টেম, ছয় স্পীকারযুক্ত সিডি প্লেয়ার,ফোন এবং গান শোনার জন্যে ব্লুটুথ স্ট্রিমিং,ইউএসবি পোর্ট এবং অক্সিলারি জ্যাক।

এর ফ্রন্ট সীটগুলো চার ভাবে উঠানামা করানো যায়, পেছনের সীটগুলোতে মাথা এবং পা রাখার জন্যে রয়েছে যথেষ্ট জায়গা। ভিটজে রয়েছে মালপত্র রাখার প্রচুর জায়গা, এমনকি বেসিক ট্রিম ছাড়া বাকি সব ডিজাইনের সাথে পেছনের সীটগুলো ভাঁজ করে রাখার সুবিধাও রয়েছে। গাড়িটির পেছনে হ্যাচব্যাক থাকার কারনে এর ট্রাঙ্কে প্রচুর মালামাল রাখা যায়।

 

বর্তমানে বাংলাদেশে তরুণ গাড়ি ক্রেতাদের মধ্যে টয়োটা ভিটজ এর  চাহিদা লক্ষ করা যায়।

 

আরো পড়ুনঃ-

নতুন গাড়ি ক্রেতাদের জন্য গাড়ির পরিচিতি সিরিজ-৬(আজকের পর্ব টয়োটা প্রিমিও)
নতুন গাড়ি ক্রেতাদের জন্য গাড়ির পরিচিতি সিরিজ-৪।(আজকের পর্ব টয়োটা ফিল্ডার )

নতুন গাড়ি ক্রেতাদের জন্য গাড়ির পরিচিতি সিরিজ-৩।(আজকের পর্ব টয়োটা নোয়াহ)

নতুন গাড়ি ক্রেতাদের জন্য গাড়ির পরিচিতি সিরিজ -২।(আজকের পর্ব টয়োটা এলিয়ন )

নতুন গাড়ি ক্রেতাদের জন্য গাড়ির পরিচিতি সিরিজ-১।(আজকের পর্ব টয়োটা এক্সিও)

নতুন গাড়ি ক্রেতাদের জন্য গাড়ির পরিচিতি সিরিজ-৬(আজকের পর্ব র‍্যাভ- ফোর )

নতুন গাড়ি ক্রেতাদের জন্য গাড়ির পরিচিতি সিরিজ-৬(আজকের পর্ব নিসান সিলফি)

নতুন গাড়ি ক্রেতাদের জন্য গাড়ির পরিচিতি সিরিজ-৯(আজকের পর্ব হোন্ডা সিভিক)

নতুন গাড়ি ক্রেতাদের জন্য গাড়ির পরিচিতি সিরিজ-১০(আজকের পর্ব হোন্ডা সিআর-ভি)

নতুন গাড়ি ক্রেতাদের জন্য গাড়ির পরিচিতি সিরিজ-১১(আজকের পর্ব টয়োটা আভাঞ্জা)

নতুন গাড়ি ক্রেতাদের গাড়ি পরিচিতি সিরিজ-১২(আজকের পর্ব নিসান সানি)

নতুন গাড়ি ক্রেতাদের জন্য গাড়ি পরিচিতি সিরিজ-১৩(আজকের পর্ব নিসান এক্স-ট্রেইল)

নতুন গাড়ি ক্রেতাদের জন্য গাড়ি পরিচিতি সিরিজ-১৪(আজকের পর্ব নিশান টিডা)

 

 

 

 

 

 

 

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

+ 87 = 97

sidebar ad space 1

ads1

sidebar ad space 2



আমাদের সাথে থাকুন



6 - 6 =  

sidebar ad space 3



  আমাদের অনুসরণ করুণ

যোগাযোগ করুণ

www.chakabd.com

email address:
info@chakabd.com
chakabd2015@gmail.com

67/D, Yakub South Center,Kalabagan, Dhaka-1205
Phone No. 01711281218

  টুইটার আপডেট

  ফেসবুক আপডেট