নতুন প্রকাশনা সমূহ:

মোটর বাইক বিষয়ক প্রাথমিক জ্ঞান

০৬ ডিসে, ২০১৫ চাকা বিডি মন্তব্য নাই টিপস এন্ড ট্রিক্স, হোম

লিখেছেন ইয়াসির আরাফাত

দিন দিন মোটরসাইকেলের জনপ্রিয়তা বেড়েই চলেছে। মোটরসাইকেলের বিশেষত্ব অন্য কোন যানবাহনে নেই। এ্যাক্সিডেন্টের কথা বাদ দিলে মোটরসাইকেল সত্যিই একটি অতি প্রয়োজনীয় জিনিষ। কার- এর চেয়ে এর ফুয়েল খরচও অনেক কম।কিন্তু সমস্যা হচ্ছে দূর্ঘটনা!! দূর্ঘটনার সাথে ভাগ্যের ব্যাপার তো আছেই কিন্তু তার চেয়ে বেশি হচ্ছে ঠিকমত চালাতে না জানা। এক তৃতীয়াংশ মোটরসাইকেল এ্যাক্সিডেন্ট ঘটে নতুনদের। নতুন বলতে আমি তাদের বোঝাচ্ছি যারা ৫,০০০ কি:মি: এর নীচে চালিয়েছেন!! বহু প্র্যাকটিস ছাড়া এক্সপার্ট তো দুরে থাক-আপনি রাস্তায় চালানোর যোগ্যতা অর্জন করতে পারবেননা। তাছাড়া আমাদের দেশের মোটর সাইকেল প্র্যাকটিকাল পরীক্ষা খুব নিখুঁত পরীক্ষা নয়।আপনার হাইট যদি বেশি হয়, আর আপনি যদি একটি 50 C.C বাইকে ঘুরে বেড়ান; সেটা বেমানান দেখাবে। আপনার উচ্চতা ও ওজন অনুসারে মোটর সাইকেল কেনা উচিত। অবশ্য আপনার বাজেট যদি অল্প হয় তাহলে সেটা আলাদা কথা।বিভিন্ন ধরনের মটর সাইকেল

মোটরসাইকেল সাধারনত:আট ভাগে ভাগ করা যায়।

Scooter-Pic

০১। স্কুটারঃ স্কুটারের দাম কম, নীচু সীট, ফ্লোর বোর্ড (ভেতরে পা রাখার ব্যবস্থা)আছে, টায়ারের সাইজ ছোট। সাধারনত: শহরের মধ্যে চালানোর জন্য ভালো।

cruiser chopper

০২। ক্রুজার/চপার ক্রুজারের সীট গুলো হয় নীচু । হ্যান্ডেল বার থাকে উঁচুতে, ফুট পেগ্স থাকে সামনের দিকে যাতে আপনি পা লম্বা করে রাখতে পারেন।

০৩। স্ট্যান্ডার্ডঃ আমাদের দেশে ইন্ডিয়ান মোটরসাইকেল সবচেয়ে জনপ্রিয়। এককালে জাপানী মোটরসাইকেল ছাড়া দেখা যেতনা। কিন্তু দাম অত্যন্ত বেশি এবং দেখতে তেমন আহামরি কিছু নয় বলে ইন্ডিয়ান বাইক গুলো যথেষ্ট জনপ্রিয়তা পেয়েছে। এগুলোর দাম বেশ কম। ফুট পেগ্স সরাসরি পায়ের নিচে থাকে, যার জন্য মোটর সাইকেল কন্ট্রোল খুব সহজ হয়ে যায়। এদের ওজন ৯০ থেকে ১৫০ কেজির মধ্যে । এগুলোর মধ্যে বেশি গতি ও বেশি শক্তির সমন্বয় চাইলে ১৫০ সিসি’র বাইকগুলো ভাল। যেমন- Honda Unicorn, Bajaj Pulsar, Hero Hunk, Yamaha FZ-FZS, Tvs Apache, Hero CBZ. এই মোটর সাইকেলগুলো বেশ শক্তিশালী সেইসাথে দেখতেও সুন্দর। পেট্রোল খরচ কমাতে চাইলে ১০০ সিসি-১২৫সিসি’র বাইকগুলো কিনতে পারেন।

sports motor bike

০৪। স্পোর্টসঃ এই বাইকগুলো আমাদের দেশের জন্য প্রযোজ্য নয়। দামও সাধারণের নাগালের বাইরে। এই বাইক গুলোর সর্বোচ্চ গতিবেগ ঘন্টায় ২৫০ কি:মি: থেকে ৩০০ কি:মি: পর্যন্ত হয়ে থাকে।

sports touring bikes

০৫। স্পোর্টস টুরীং- শক্তিশালী ইঞ্জিন, আরামদায়ক সীট, উইন্ডশীল্ড আর স্যাডল ব্যাগ যুক্ত মোটর সাইকেল। শহুরে রাস্তা থেকে পাহাড়ী রাস্তা সবখানেই মজা। লং জার্নিতে এই মোটর সাইকেলগুলো ভাল।

০৬। টুরীং সবরকম সুবিধা সম্বলিত বাইক হচ্ছে টুরীং বাইক। রেডিও, স্টেরিও, জিপিএস, ইন্টারকম, ক্রুজ কন্ট্রোল, হীটেড সীট, উইন্ডশীল্ড, স্যাডলব্যাগ এবং ট্রান্ক- এগুলো সবই আছে।

dual sports motor bikes

০৭। ডুয়েল স্পোর্টসঃ নতুন যারা মোটরসাইকেল চালানো শিখছেন তাদের জন্য এই বাইক গুলো সবচেয়ে ভালো। এগুলোর ওজন কম এবং যে কোন রাস্তায় চলার জন্য উপযোগী। পিছলে পড়ে যাওয়ার সম্ভবনা কম এবং পড়ে গেলেও মোটর সাইকেলের তেমন বড় কোন ক্ষতি হয়না।

dirt motor bike

০৮। ডার্টঃএই বাইক গুলো বাজে রাস্তার জন্যেই তৈরী হয়েছে। গ্রামের কাঁচা রাস্তার জন্য আদর্শ। এগুলো মেইন রোডে খুব জোরে চলতে পারেনা। কারন এর টায়ার গুলো এত বেশি খাঁজ কাটা যা বাইকের স্পিড কমিয়ে দেয় কিন্তু বাজে রাস্তায় খুবই কাজে আসে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

+ 9 = 13

sidebar ad space 1

ads1

sidebar ad space 2



আমাদের সাথে থাকুন



6 - 4 =  

sidebar ad space 3



  আমাদের অনুসরণ করুণ

যোগাযোগ করুণ

www.chakabd.com

email address:
info@chakabd.com
chakabd2015@gmail.com

67/D, Yakub South Center,Kalabagan, Dhaka-1205
Phone No. 01711281218

  টুইটার আপডেট

  ফেসবুক আপডেট