নতুন প্রকাশনা সমূহ:

জেনে নিন গাড়ি মেনটেইনেন্সের কিছু মৌলিক ধারণা

১২ অক্টো, ২০১৬ চাকা বিডি মন্তব্য নাই টিপস এন্ড ট্রিক্স, হোম

মাহমুদ।

বহু শখের গাড়িটিকে টিপটপ রাখতে কয়েকটি কাজ করতে হয়। বিশেষ করে গাড়ি রিপেয়ারের বিষয়টি খুব গুরুত্বপূর্ণ। গাড়িতে কোনো সমস্যা না দেখা দেয়ার আগে সাধারণত গাড়ির চিকিৎসা হয় না। অথচ কিছু কাজ রয়েছে নিজ থেকেই করতে হয়। এ জন্য দরকার গাড়ি মেনটেইনেন্সের কিছু মৌলিক ধারণা। কোনো ঝামেলা দেখা না দিলেও যে ৭টি রিপেয়ার করে নেয়া জরুরি তা এখানে জেনে নিন।

উইন্ডশিল্ড ওয়াইপারসঃ

windshild-wiper

রিপেয়ারের ক্ষেত্রে এই কাজটিকে সবচেয়ে সরল বলে ধরা যায়। ওয়াইপার তো ঠিকই চলছে, তবুও বদলাতে হবে কেন? খেয়াল করে দেখুন, বৃষ্টিতে বা ময়লা পরিষ্কার করতে ওয়াইপার ব্যবহারের পর গাড়ির উইন্ডশিল্ড আগের মতো ঝকঝকে হচ্ছে না। হয়তো আরো দুই মাস আগে নতুন ওয়াইপার লাগানোর প্রয়োজন ছিল যার দাম খুব বেশি নয়।

ইঞ্জিন ওয়ার্নিং লাইটঃ

checkengine2

চেক ইঞ্জিন লাইটকে অবহেলা করবেন না। ড্যাশ বোর্ডে সংযুক্ত এই লাইটটি যদি জ্বলে ওঠে, সঙ্গে সঙ্গে দেখুন ইঞ্জিনে কী হয়েছে। লাইটটি যদি জ্বলতে থাকে ও নিভতে থাকে তবে যত দ্রুত সম্ভব এক্সপার্টকে ডাকুন। এই লাইটি জ্বলা অবস্থায় আপনি যত বেশি গাড়ি চালাবেন তত বেশি ক্ষতি হতে থাকবে।

চাকার প্রেশারঃ

tyre-pressure-gauge-sq

এটাকে ঠিক রিপেয়ার বলা যায় না, তবে মেইনটেইনেন্স বলা যায়। নিয়মিত গাড়ির চাকাগুলোর প্রেশার দেখে নেয়া জরুরি। এর সঙ্গে দেখে নিন চাকায় কিছু ঢুকে রয়েছে কিনা। প্রেশার কম কিনা পরীক্ষা করিয়ে নিন। যদি তা হয় এবং দূরের পথ পাড়ি দেন বা উচ্চগতিতে গাড়ি চলতে থাকে, তবে দুর্ঘটনা ঘটার সম্ভাবনা থাকে।

ভাঙা বা ফেটে যাওয়া উইন্ডশিল্ডঃ

আপনি এবং গাড়ির বাইরের দুনিয়ার মাঝে রয়েছে উইন্ডশিল্ড। এর ভেতর দিয়েই সামনে দেখে গাড়ি চালাচ্ছেন। কাজেই পথের যাবতীয় বিষয় পরিষ্কারভাবে দেখতে পারাটা জরুরি।

টাইমিং বেল্টঃ
timing-belt
প্রতি এক লাখ মাইল পাড়ি দেওয়ার পর টাইমিং বেল্টটিকে বদলে নেয়া অতি জরুরি। এটি নষ্ট হয়ে গেলে ইঞ্জিনের ব্যাপক ক্ষতি হতে পারে। তা ছাড়া এটি খুব বেশি মূল্যের নয়।

ফ্লুইডঃ

autobytel-istock-fluid1

গাড়ির বিভিন্ন অংশে যে ফ্লুইড দিতে হয় তা পরীক্ষা করে দেখেন তো? ট্রান্সমিশন ফ্লুইড, ব্রেক ফ্লুইড, কুলান্ট, পাওয়ার স্টিয়ারিং এবং পানি-এ সবকিছু দেখে নিচ্ছেন তো? গাড়ির ফ্লুইড পরীক্ষা করে নিলে তা আপনার বহু অর্থ বাঁচিয়ে দিতে পারে।

অক্সিজেন সেন্সরঃ

oxygen-sensor

যদি মনে হয় গাড়িতে আগের চেয়ে বেশি গ্যাস প্রয়োজন হচ্ছে, তবে অক্সিজেন সেন্সরে সমস্যা হয়েছে বলে ধরে নিতে পারেন।
গাড়ির হুড তুলে দেখে নিন সব তার সঠিক স্থানে সব লাগানো রয়েছে কিনা। প্রয়োজনে আশপাশের কোনো গ্যারেজে চলে যান।

 

 

 

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

76 − 70 =

sidebar ad space 1

ads1

sidebar ad space 2



আমাদের সাথে থাকুন



18 + 19 =  

sidebar ad space 3



  আমাদের অনুসরণ করুণ

যোগাযোগ করুণ

www.chakabd.com

email address:
info@chakabd.com
chakabd2015@gmail.com

67/D, Yakub South Center,Kalabagan, Dhaka-1205
Phone No. 01711281218

  টুইটার আপডেট

  ফেসবুক আপডেট